সূচী

ইতিহাস তথ্য ও তর্ক

সাম্প্রতিক লেখা

ভারতে একসময়ে নাস্তিক্যবাদ চর্চা করা হয়েছে, তখন যুক্তিবাদ ক্রমাগত বিকশিত হয়েছে। সেই সময়ে এই দেশে এই নাস্তিক সম্প্রদায়গুলি শক্তিশালী ছিল। ২০১২ সালে ডিসেম্বর মাসে পিউ রিসার্চ সেন্টার বিশ্বব্যাপী ২৩০টি দেশে গবেষণা করে কিছু তথ্য প্রকাশ করে। ওই মুহূর্তে সারা পৃথিবীতে প্রায় ১৬.৩% মানুষ কোন প্রচলিত ধর্মে আস্থা রাখেননি। এদের মধ্যে আছেন সেকুলার হিউম্যানিস্ট। এরা মনে করেন কোন ধরণের ঈশ্বরের সহায়তা ছাড়াই মানুষ নিজে ন্যায়পরায়ণ থাকতে পারে। আছেন ফ্রি থিঙ্কার, এরা সবরকম ধর্মমতকে ত্যাগ করেছেন। আছেন স্পিরিচুয়াল-রা। এরা সংগঠিত ধর্মে আস্থা রাখেন না তবে আধ্যাত্মিক উন্নতির পক্ষে। আর আছেন ধর্ম বিরোধীরা, এরা মনে করেন মানুষের ভালো থাকার জন্য কোন ধর্মের প্রয়োজন নেই।
প্রাচীন ভারতীয় সাহিত্যে গ্রীক সাহিত্যের মত সমপ্রেম বা সমকামের প্রচুর উদাহরণ পাওয়া যায় না। রামায়ণ এবং মহাভারত থেকে অল্প কিছু উদাহরণ দেওয়া যেতে পারে হয়তো। সুলতানি যুগে ভারতীয় সাহিত্যে কিছু বিবর্তন দেখা যায় এবং বেশ কিছু সাহিত্যে সমপ্রেম বা সমকামের উদাহরণও দেখতে পাওয়া যায়। সুলতানি যুগের শুরু হয় ১১৯২ সালে মহম্মদ ঘোরির দিল্লীজয়ের পর থেকে। মহম্মদ ঘোরির মৃত্যুর পর পাঁচটি রাজবংশ দিল্লীতে রাজত্ব করে- মামলুক বা ‘দাস’বংশ (১২০৬-১২৯০), খলজি (১২৯০-১৩২০), তুঘলক (১৩২০-১৪১৪), সৈয়দ (১৪১৪-১৪৫১) ও লোদি (১৪৫১-১৫২৬)। আমাদের আলোচনার শুরু রাজরাজড়াদের দিয়ে নয়, ভারতবর্ষের অন্যতম সেরা কবিদের একজন- আমীর খুসরোকে নিয়ে।